মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:০৬

ব্রিটিশ চ্যান্সেলরের এ কেমন বাজেট প্রস্তাব!

ব্রিটিশ চ্যান্সেলরের এ কেমন বাজেট প্রস্তাব!

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন / ৮৩
প্রকাশ কাল: রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

ব্রিটেনে পরিবার ও ব্যবসার জন্য জ্বালানি বিল কমাতে অক্টোবর থেকে ছয় মাসে ৬০ বিলিয়ন ইউরো বা ৬৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করার পরিকল্পনা রয়েছে দেশটির চ্যান্সেলরের। যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু স্থায়ী ব্যবস্থা কি হবে সেটা স্পষ্ট নয়।

ব্রিটেনের লন্ডন হাউস অব কমন্সে সরকারের বার্ষিক প্রবৃদ্ধির এক বিবৃতি দেওয়ার সময় চ্যান্সেলর অব দ্য এক্সচেকার বা ব্রিটেনের চ্যান্সেলর কোয়াসি কোয়ার্টেং ‘নতুন যুগের জন্য নতুন পদ্ধতির’ কথা বলেছেন।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর সংক্ষিপ্ত বাজেট বক্তৃতায় ৩০ মিনিটের কিছু কম সময় বক্তব্য রাখেন কোয়ার্টেং। অর্ধ শতাব্দীর মধ্যে যে কোনো চ্যান্সেলরের চেয়ে এই অর্থবছরে সবচেয়ে বড় পরিকল্পনা ও প্রস্তাব পেশ করলেন তিনি।

তবে এমন একটি অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জনের জন্য এটি করলেন যা তিনি অর্জন করতে পারবেন না বলে ধারণা করা হচ্ছে। সত্যিই এটি একটি নতুন দৃষ্টিভঙ্গি।

আয়কর কমানো হবে ১৯ থেকে ২০ শতাংশ। কোয়ার্টেং সংসদ সদস্যদের বলছিলেন, করপোরেশন ট্যাক্স বাড়বে ২৫ শতাংশ। পরিবর্তে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ১৯ শতাংশ হারে অর্থ প্রদান করতে থাকবে, যা জি-২০ ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন।

সর্বোচ্চ উপার্জনকারীরা আরও ভালো সুযোগ পাচ্ছেন। যারা দেড় লাখ ইউরো বা এর বেশি আয় করেন তাদের ওপর কর ৪৫ থেকে কমিয়ে ৪০ শতাংশ করা হবে। ব্রিটেনে আর নরওয়ের চেয়ে বেশি প্রান্তিক করের হার থাকবে না বলে কোয়ার্টেং ঘোষণা করেছেন।

এই পরিবর্তনগুলোর ফলস্বরূপ, সরকার ধারণা করছে যে অর্থবছরের বাকি সময়ে আরও ৭০ বিলিয়ন পাউন্ড (জিডিপির ৩ দশমিক ২%) ঋণ বাড়াতে হবে। ফলে আরও ঋণ নেওয়া প্রয়োজন হবে।

তবে এসব করার পেছনে কি কারণ তা কোয়ার্টেং ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি এবং তার ঘনিষ্ঠ নতুন প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস ব্রিটেনের নিম্ন প্রবৃদ্ধির জন্য প্রধানত শ্রম ও মূলধন উভয়ের ওপর উচ্চ কর ধরে রেখেছেন।

কোয়ার্টেংয়ের বক্তব্য অনুযায়ী, এগুলো হ্রাস করে দেশকে মধ্য মেয়াদে বছরে আড়াই শতাংশ প্রবৃদ্ধি প্রবণতায় ফিরে আসতে সহায়তা করবে।

একইভাবে পরিকল্পনার নিয়ম সংস্কারের প্রতিশ্রুতি এবং কম ট্যাক্স বিনিয়োগ অঞ্চল তৈরি করা। চ্যান্সেলর বলেন, আমরা প্রবৃদ্ধির দিকে মনোনিবেশ করবো, এমনকি যেখানে এর অর্থ নিয়ে কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এই সিদ্ধান্তগুলো রক্ষণশীল সরকারকে তার নিজের অতীতের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত করেছিল। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও সাবেক চ্যান্সেলর ঋষি সুনাক ক্ষমতায় থাকার এক বছর পরেই জাতীয় বীমা, বেতনের ট্যাক্সে কাটতি আসে।

কর্পোরেশন ট্যাক্স বৃদ্ধি এমনকি কোয়ার্টেং এটি বাদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও কার্যকর হয়নি। সুনাক কর্তৃক প্রবর্তিত অ্যালকোহল শুল্কের বৃদ্ধি প্রস্তাব বাতিল করা হবে। থেরেসা মে (যিনি ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব ছাড়েন) এবং বরিস জনসন (যিনি চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী থেকে সরে দাঁড়ান) তাদের অধীনে প্রবর্তিত স্ব-নিযুক্ত অবস্থানের সংস্কারগুলো বাতিল করা হবে।

এটি একটি দার্শনিক বিরতিও বলা চলে। গত এক দশক ধরে কনজারভেটিভরা তাদের আপিলের ভিত্তিতে সুনাম ধরে রেখেছে। এখন কোয়ার্টেং-এর অধীনে, ঋণ জমা হবে। থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট অব ফিসকাল স্টাডিজ (আইএফএস) বলছে, ট্যাক্স কমানোর ফলে ব্রিটেনের পাবলিক-ডেট-টু-জিডিপি অনুপাত ২০২১-২২ সালের ৮০ শতাংশ থেকে ২০২৬-২৭ সালে প্রায় ৯৫ শতাংশ বেড়ে যাবে।

এমনকি ব্যয়বহুল প্রধানমন্ত্রী জনসনও স্বীকার করেছেন যে, বর্ধিত ব্যয়কে অতিরিক্ত করের দ্বারা অর্থায়ন করতে হবে। এখন রক্ষণশীলরা অন্ততপক্ষে দলের সামনের বেঞ্চ, ভারসাম্যহীনতার বিষয়ে স্বস্তিতে আছে।

জিডিপির ১ দশমিক ৫ শতাংশ বেশি বার্ষিক খরচে, ১৯৭২ সালের পর থেকে যে কোনো বাজেটের সবচেয়ে বেশি ট্যাক্স দিতে হয়েছে, বলছে আইএফসি।

তুলনা করার বিষয়টি যদিও অস্বস্তিকর। কারণ সে বছরের বাজেট-এছাড়াও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ভিত্তিতে ব্রিটেনকে সংকটের পথে নিয়েছিল যা ১৯৭৬ সালে আইএমএফের বেইল-আউটে পরিণত হয়েছিল।

কোয়ার্টেংয়ের বিবৃতির দিনে, স্টার্লিং ডলারের বিপরীতে ৩ শতাংশ কমেছে। মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এটির বৃহত্তম একদিনের পতন।

কোয়ার্টেং-এর নীতি হলো ডেভিড ক্যামেরনের অর্থ বছরের বিপরীত, যখন পার্টি অর্থ সস্তা থাকা সত্ত্বেও কঠোর ব্যয়ের ওপর বাজি ধরে। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড ইতিমধ্যেই মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের প্রয়াসে সুদের হার দ্রুত বাড়িয়েছে, যা ৯ দশমিক ৯ শতাংশে পৌঁছেছে।

এখন এটি একটি বড় ঘাটতির অর্থনৈতিক রাশ পূরণ করতে হবে। আগস্টের শুরুতে, বাজারের দাম নির্ধারণে প্রস্তাব করেছিল যে ২০২৩ সালে প্রায় ২ দশমিক ৮ শতাংশ বাড়বে। সাধারণত পাউন্ড বৈশ্বিক পুঁজিতে উচ্চ সুদের হার থেকে উপকৃত হবে। তারপরও যেহেতু বিনিয়োগকারীরা স্টার্লিংকে ডলার, ইউরো বা জাপানিজ ইয়েনের চেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ হিসেবে দেখেন, তাই তেমন কোনো সুবিধা হয়নি।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি সুফল বয়ে আনবে, কোয়ার্টেংয়ের যুক্তি। সরকার বাজি ধরছে যে উচ্চ সুদের হার নির্বিশেষে, ট্যাক্স কমানোর ফলে কাজ এবং বিনিয়োগকে উত্সাহিত করে প্রবৃদ্ধি বাড়াবে। কিছু প্রমাণ আছে যে এটি কাজ করে, বিশেষ করে কর্পোরেট ট্যাক্সের সঙ্গে।

২০১৭ সালে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে আমেরিকায় পাস করা সরকারের কর তুলনামূলক কম ছিল। তাদের প্রকৃত প্রভাব কী ছিল তা বলা কঠিন। কিন্তু মহামারি আঘাত হানার আগে দুই বছরে ট্রাম্পের কাটছাঁট কার্যকর ছিল।

আমেরিকার অর্থনীতি গড়ে বার্ষিক ২ দশমিক ৪ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছিল, যা ট্রাম্প প্রশাসনের লক্ষ্যমাত্রা ৩ শতাংশের বৃদ্ধির চেয়ে কম। মধ্য মেয়াদে কোয়ার্টেং আড়াই শতাংশ প্রবৃদ্ধির আশা করছেন। যেখানে স্বল্পমেয়াদে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড মন্দার আশঙ্কা করছে।

কোয়ার্টেং এবং ট্রাস মনে করেন কর অনেক বেশি এবং তাই সেগুলো কেটে ফেলেছে, মধ্যম ভোটার, থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক বা বাজার যাই ভাবুক না কেন। অন্যান্য রাজনীতিবিদরা প্রয়োজনের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের প্রস্তাবও পালটান। জর্জ অসবোর্ন, ক্যামেরনের অধীনে চ্যান্সেলর যিনি, যুক্তি দিয়েছিলেন যে তার একটি ছোট রাষ্ট্রের স্বপ্ন পূর্ববর্তী অতিরিক্ত ব্যয়ের জন্য অনুশোচনা ছিল। বিপরীতে কোয়ার্টেং এবং ট্রাস তাদের বিশ্বাসে উদগ্রীব।

কোয়ার্টেং জনপ্রিয় হওয়ার বিষয়ে চিন্তা করতে পারেন না। কিন্তু তার সহকর্মী এমপিরা, যখন তিনি কথা বলছিলেন, তখন তার পেছনে আড়ষ্টভাবে ছিলেন। তার বিবৃতিতে কোয়ার্টেং তার নিজের দলের ক্ষমতার রেকর্ড স্থাপন করেছেন। তারা অভিযোগ করেন, ১৯৪০ সালের পর থেকে ব্রিটেন সর্বোচ্চ করের বোঝা ভোগ করতে চলেছে।

চ্যান্সেলর ‘স্থবিরতার দুষ্ট চক্রকে বৃদ্ধির একটি পুণ্য চক্রে’ পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। একজন চ্যান্সেলরের জন্য তার পূর্বসূরিদের রেকর্ড আক্রমণ করা বিস্ময়কর নয়। কিন্তু যখন তারা একই দলের সদস্য। আমি কি চ্যান্সেলরকে তার গত ১২ বছরের রেকর্ডের ব্যাপক ধ্বংসের স্বীকারোক্তির জন্য ধন্যবাদ জানাতে পারি? লেবার পার্টির ছায়া চ্যান্সেলর রাচেল রিভস তার প্রতিক্রিয়া এভাবে শুরু করেন।

কোয়ার্টেং-এর প্রবৃদ্ধি বাড়ানোর ইচ্ছা প্রশংসনীয়, কিন্তু তার পরিকল্পনা অর্থনৈতিকভাবে কাজ করবে না। এটি রাজনৈতিকভাবেও দমনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ব্যাংক অব ইংল্যান্ড এবং ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাপকভাবে অনুরূপ আর্থিক নীতি অনুসরণ করবে এমন প্রত্যাশা সত্ত্বেও, স্টার্লিং বছরের শুরু থেকে ডলারের বিপরীতে প্রায় ২০ এবং আগস্টের শুরু থেকে ১০ শতাংশ-এ নেমে এসেছে। একটি পতনশীল মুদ্রা আমদানিকে আরও ব্যয়বহুল করে তোলে। একই সঙ্গে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের মুদ্রাস্ফীতি সমস্যাকে আরও খারাপ করে তোলে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2022