সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:১৫

ব্রিটেন ও ইইউ সম্পর্ক কোন পথে

ব্রিটেন ও ইইউ সম্পর্ক কোন পথে

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন / ৮২
প্রকাশ কাল: বুধবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২৩

ইইউ থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার এই প্রক্রিয়া বা সিদ্ধান্ত হলো ‘ব্রিটিশ এক্সিট’ বা ব্রেক্সিট। গত ১০ বছরে নানা গোলযোগের মধ্য দিয়ে গেছে ইইউ ও ব্রিটেনের সম্পর্ক। কীভাবে আগামী ১০ বছরে ইইউর সঙ্গে ব্রিটেনের সম্পর্ক ভালো হতে পারে সে নিয়ে একটি সম্যক ধারণা তুলে ধরা হয়েছে দ্য ইকোনমিস্টের বিশ্লেষণে।

ইউরোপের ২৮টি দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক জোট হলো ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ২০১৬ সালের ২৩ জুন ব্রিটেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

দশ বছর আগে, জানুয়ারি মাসে ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন সংবাদ সংস্থা ব্লুমবার্গের লন্ডন সদর দপ্তরে একটি ভাষণ দিয়েছিলেন। এতে প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন ইইউ থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে তার সুচতুর পরিকল্পনার রূপরেখা তুলে ধরেন।

ডেভিড ক্যামেরন নেতৃত্বে আসার পর থেকেই মূলত মৌলিক সংস্কার কাজ শুরু করেন। তার দলকে ইউরোপবিষয়ক একঘেয়ে দ্বন্দ্ব থেকে বের করে আনার চেষ্টা করেন ব্রিটেনের সদস্যপদ নিয়ে অন্তর্বর্তী গণভোটের মাধ্যমে।

কিন্তু ২০১৬ সালে এই ব্লক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ভোট ব্রিটেনের অর্থনৈতিক অস্বস্তি বাড়িয়ে তোলে, বাণিজ্যের গতি বানচাল এবং বিনিয়োগ শিথিল করে। এটি প্রকৃত মিত্রদের সঙ্গে ব্রিটেনের সম্পর্ককে আরও খারাপ করে এবং তার নিজস্ব ইউনিয়নের বন্ধনকেও দুর্বল করে।

সর্বোপরি, এটি খারাপ হয় যখন ব্রিটিশ রাজনীতিকে জাদুকরি চিন্তার ধ্বংসাত্মক রুপে ধারণ করে। ক্যামেরন নিজেই এর ভুক্তভোগী ছিলেন। ব্রিটেনের সঙ্গে মানানসই করার জন্য মৌলিক নীতিগুলো পরিবর্তন করতে ইইউ-এর ইচ্ছাকে খারাপভাবে অতিমূল্যায়ন করার কারণে এমনটি ঘটেছে।

ব্রেক্সিটের পক্ষে যারা শুরু থেকেই তাদের নিজস্ব ধোঁয়াশার ওপর ঝুঁকে ছিল ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য। ফলে যে লাভ হতে পারে তা বা আইরিশ সীমান্তের ইস্যুটি সরিয়ে নেওয়া হোক, যে কোন উপায়ে সেটিই তারা চাচ্ছিলেন। অবশিষ্টরাও, যদি মনে করেন বিভক্তিটি কেবল পূর্বাবস্থায় ফেরানো যেতে পারে তবে তারাও বেকায়দায় পড়বেন।

দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, ইউরোপের সঙ্গে ব্রিটেনের আরও ভালো সম্পর্কের বিকল্প পথ রয়েছে। এখন অনেক ব্রিটিশ নাগরিক ব্লক ছাড়ার সিদ্ধান্তকে ভুল বলে মনে করছে। ইইউ তার জটিল প্রতিবেশীর সঙ্গেও আরও ভালো সম্পর্ক রাখতে চায়। কিন্তু সেই পথ অবলম্বন করতে গেলে যাদু বাস্তবতার অবসান ঘটাতে হবে।

এই পথ হতে হবে ধীরগতির ও ক্রমবর্ধমান প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। এটি আবেগপ্রবণ হলেও বিপ্লবী নয়। গণভোট আয়োজন এবং ব্রাসেলসে আল্টিমেটাম উপস্থাপন করার পরিবর্তে আস্থা ও ঐকমত্য লালন করতে হবে। বলা যায়, যে কেউ পাহাড় থেকে লাফ দিতে পারে। কিন্তু পাহাড়ে চড়া কঠিন কাজ।

ব্রেক্সিটপন্থিদের জন্য অর্থ দাঁড়াবে, ব্রেক্সিট যে ক্ষতি করেছে তা অকপটে স্বীকার করে নেওয়া। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের অনুমান বলছে, ব্রেক্সিট ২০২১ থেকে গত পাঁচ বছরে প্রায় ২৫ শতাংশ বিনিয়োগে হতাশা সৃষ্টি করেছে। একটি থিংক-ট্যাংক মনে করে ব্রিটেন ইউরোপে থাকলে অর্থনীতি এখন ৫ শতাংশের বেশি বড় হতো।

তবুও ব্রেক্সিটের মধ্যে বিশ্বস্ত সত্য-কথন এখনও পরষ্পর বিরোধী। গত ডিসেম্বরে কনজারভেটিভ সরকার ব্রেক্সিট লভ্যাংশ হিসাবে আর্থিক-পরিষেবা শিল্পে নমনীয় সংস্কারের পথ দেখিয়েছিল। যদিও তখন অনেক পরিবর্তন ইইউ-এর সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। সরকার এখনও ২০২৩ সালের শেষ নাগাদ সমস্ত ইইউ আইন প্রতিস্থাপন বা বাতিল করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যদিও এটি লক্ষ্যহীন।

অবশিষ্টদের জন্য, বাস্তববাদের অর্থ হলো ব্লকে পুনরায় যোগদানের ধারণাগুলোকে দূরে রাখা। যদি দ্য ইকোনমিস্টের কাছে একটি জাদুর কাঠি থাকে, তাহলে এটি আনন্দের সঙ্গে ঘড়ির কাঁটা ২০১৬-তে ফিরিয়ে দেবে, যখন ব্রিটেন একটি প্রভাবশালী ইউরোপীয় সদস্য হিসাবে একটি বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত মর্যাদা উপভোগ করেছিল। একই সঙ্গে অনেকগুলো ভালো কাজের সাক্ষী ছিল।

কিন্তু সদস্যপদ পাওয়ার পক্ষে একটি কঠিন রাজনৈতিক ও সামাজিক ঐকমত্য না হওয়া পর্যন্ত ইইউ সরকারগুলো পুনরায় যোগদানে ভেটো দেবে। বিভিন্ন জরিপ থেকে দেখা যায় যে,, ব্রিটিশরা ইউরোপের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক চায়। কিন্তু রাজনৈতিক একত্রীকরণের প্রকল্প হিসেবে ইউরোপের উৎসাহ অনেক কম। এখন সদস্য প্রশ্নে ফিরে যাওয়া ব্রেক্সিট বছরের বিষাক্ত মেরুকরণকে পুনরুজ্জীবিত করবে।

ইউরোপের সঙ্গে একটি ভালো সম্পর্কের জন্য বাস্তবসম্মত পথ তিনটি পর্যায়ে গঠিত হবে। এসব উপাদান হচ্ছে, স্বাভাবিককরণ, নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণ। প্রথমত, ব্রিটেনকে ব্রাসেলসের সঙ্গে তার সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক এরইমধ্যে ভালোর করার জন্য কৃতিত্বের দাবিদার। উত্তর সাগর থেকে অভিবাসন পর্যন্ত সব ইস্যুতে সহযোগিতার সুবাতাস বইছে।

কিন্তু উত্তর আয়ারল্যান্ডের প্রোটোকলে যদি তিনি একটি কার্যকরী চুক্তিতে পৌঁছাতে না পারেন তবে এটি সামান্যই গণ্য হবে। এটি করলে বৈজ্ঞানিক-গবেষণা প্রকল্পে অংশগ্রহণ থেকে শুরু করে নিয়ন্ত্রকদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার জন্য আরও ভালো কিছু ঘটবে।

পরবর্তী ধাপ হলো নির্মাণ। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের আলোচিত সহজ বাণিজ্য ও সহযোগিতাবিষয়ক চুক্তি (টিসিএ) ২০২৬ সালে পুনরায় পর্যালোচনা হবে। চুক্তি কার্যকর করার জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ। লেবার পার্টি, তখন ক্ষমতায় থাকতে পারে।

লেবার পার্টিকে অবশ্যই জাদুকরি চিন্তাধারার প্রতি তার নিজস্ব প্রবণতা দেখতে হবে। ধরে নিতে হবে যে টোরিস না হওয়াই ইউরোপীয় দল জয়ের জন্য যথেষ্ট হবে। কিন্তু কঠোর কূটনৈতিক দুর্নীতি সত্ত্বেও, টিসিএ প্রসারিত করা সম্ভব।

এই সংশোধনগুলো ইইউ ত্যাগ করার ফলে যে অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে তা সামান্য পূরণ করবে। এই দশকের দ্বিতীয়ার্ধের দিকে, ব্রিটেন-ইউ সম্পর্ককে নতুন করে ভালো করার জন্য কাজ শুরু করতে হবে। ইইউর বাইরে নরওয়ের বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদার হচ্ছে ব্রিটেন।

নরওয়ের চুক্তি বিকল্প হিসেবে ব্লক থেকে বেরিয়ে আসায় ব্রিটেনের জন্য একটি বুদ্ধিমান কাজ। কিন্তু এই চুক্তি নরওয়ের জন্য উপযুক্ত। কারণ একটি ছোট, স্থিতিশীল জায়গা যার প্রধান রপ্তানি হলো তেল, গ্যাস এবং মাছ। ব্রিটেনের মতো বৃহৎ পরিষেবাভিত্তিক অর্থনীতির জন্য অনেক কম অবদান রাখতে পারবে এটি।

এদিকে, ব্রেক্সিট ভোটের পরে থেরেসা মে যে ভূখণ্ড তৈরি করেন তা আরও প্রতিশ্রুতিশীল। সেটি হচ্ছে, সেবাখাতে স্বায়ত্তশাসন বজায় রেখে ইউরোপীয় আইন গ্রহণের বিনিময়ে পণ্য ও কৃষির মতো ক্ষেত্রে বাজারের প্রবেশাধিকার আরও গভীর করা। কাস্টমস ইউনিয়নে পুনরায় যোগদান শেষ পর্যন্ত সম্ভব হতেও পারে। এটি জাদুকরি চিন্তাভাবনার আরেকটি রূপ হিসাবে অনেককে আঘাত করতে পারে।

এটা অবশ্যই উভয় পক্ষের জন্য কঠিন হবে। ব্রিটিশদের জন্য, এর অর্থ হবে কৌশলগত স্বার্থে ইউরোপীয় আইনের প্রতি গোঁড়ামি ত্যাগ করা। টোরিদের জন্য, এটি বিশ্বাসঘাতকতার মতো শোনাবে। তবে যদি তাদের প্রকল্পের জন্য জনসমর্থন দরকার না হয়, তবুও অর্থনীতির বৃদ্ধি প্রয়োজন। সেকারণে ব্রিটেনের বৃহত্তম রপ্তানি বাজারে আরও গভীর প্রবেশাধিকার প্রয়োজন।

কেননা, ব্রিটেনের সঙ্গে আরও গঠনমূলক ও সম্মানজনক সম্পর্কের সুবিধাগুলো কেবল অর্থনৈতিক নয়, যেমন ইউক্রেন যুদ্ধ। ব্রিটেনের সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট সম্পর্ক ইউরোপের স্থাপত্যের বিস্তৃত পুনর্বিবেচনার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। আগামী দশকে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে চিন্তা করতে হবে কীভাবে ইউক্রেন ও পশ্চিম বলকান রাষ্ট্রের আকাঙ্খা পরিচালনা করা যায়।

বহু মাত্রিক ও বহু-গতিসম্পন্ন ইউরোপ সম্পর্কে পুরোনো বিতর্কগুলোকে ফেলে নতুন করে প্রেরণা যোগাতে হবে। ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে একটি স্থায়ী সম্পর্ক গড়ে তুলতে সময়, কঠোর পরিশ্রম ও বাস্তবসম্মত ধারণা লাগবে। যদিও কল্পনা করার জায়গা এখনও জিইয়ে আছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য এটির অর্থ হলো একক বাজারের ব্রিটেন চেরি-পিকিংয়ের ধারণার প্রতি তার বিদ্বেষকে নরম করা। কিন্তু ব্রিটেনের একটি গতিশীল সিঙ্গাপুর-অন-টেমস হয়ে ওঠার দৃশ্যকল্প এখনও দূরভিসন্ধী। রাসায়নিক, কৃষি বা রাষ্ট্রীয় কোনো সাহায্যের জন্য ব্রিটেনকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের শাসনে আবদ্ধ করা একটি নিয়ন্ত্রক পরাশক্তির ব্লকের জন্য আশীর্বাদ হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮  
All rights reserved © shirshobindu.com 2022