শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ১২:১১

পদত্যাগের কথা বললেও পদত্যাগ করেননি এমপি রনি

পদত্যাগের কথা বললেও পদত্যাগ করেননি এমপি রনি

এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সাংবাদিক পেটানোর ঘটনায় দলের ভেতরে বাইরে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে পদত্যাগ করার আওয়াজ দিলেও শেষ পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) ‍আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি।

মঙ্গলবার দুপুরের আগে আগে নিজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে পদত্যাগের ইঙ্গিত দেন বহুল আলোচিত-সমালোচিত এই এমপি। এরপর তিনি সংসদ ভবনে স্পিকারের সঙ্গে দেখা করেন। সকাল সাড়ে ১১টার পর থেকে দীর্ঘ সময় ফোন রিসিভ করা থেকেও বিরত থাকেন তিনি। এর ফলে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেবেন বলে খবর ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

এর আগে স্পিকারের কক্ষের বাইরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমার দলের একটি বড় অংশ সালমান এফ রহমানের পক্ষে কথা বলছে। এ কারণে নৈতিকভাবে আমার মনে হয়েছে আমার পদত্যাগ করা উচিৎ। যেহেতু এটি সাংবিধানিক বিষয়, এ কারণে আমি স্পিকারের সঙ্গে আলোচনা করতে এসেছি।

এর দুই ঘণ্টা আগে রনির নামে এক ফেইসবুক পোস্টে লেখা হয়-  “Probably I am going to resign. I feel, I should face the conspiracy as general public. Our media might colored my MP post our my party. In Sha Allah, I would prove what was real fact before the picture.

“I would invite media personalities to make a equal level playing field for me and my opponent. Amar mukh bondho kore to onnokay sujog kore dayar modhay ar ja houk justice, transparency and democracy er nomuna hotay pare na.”

বর্তমান সময়ের অন্যতম আলোচিত-সমালোচিত সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি তার স্ট্যাটাস আপলোডের এক ঘণ্টার মধ্যেই তাতে ৩০০টি লাইক, ৩৩টি শেয়ার ও অনেক মানুষের কমেন্টস পড়ে। কমেন্টে অনেকেই তাকে পদত্যাগ করা চিন্তা থেকে যেমন বিরত থাকার পরামর্শ দেন। তেমনি সোহেল তাজের উদাহরণ টেনে তাকে কটাক্ষও করেন কেউ কেউ। কাফি রশিদ নামে একজন লিখেন, পদত্যাগ করলে আপনারে কেউ জিগাইবো? বাহবা’র বদলে উলটা ধোলাই খাইবেন। সাংবাদিক পিটাইছেন, উল্টাপাল্টা কাম করছেন, এখন আবার কুটুকুটু নীতিনীতি কথা। পদত্যাগ করলেই সোহেল তাজ হওয়া যায় না।

 

প্রসঙ্গত, গত শনিবার রাজধানীর তোপখানা রোডের মেহেরবা প্লাজায় এমপি রনি তার অফিসে ইনডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের অপরাধ বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘তালাশ’র প্রতিবেদক  ইমতিয়াজ মমিন ও ক্যামেরাপার্সন মহসিন মুকুলকে মারধর করেন। ভিডিওচিত্রে দেখা যায়, সংসদ সদস্য রনি নিজেই প্রতিবেদক ও ক্যামেরাপার্সনের ওপর চড়াও হয়ে লাথি মারছেন। ঘটনার পর ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ রনিকে আসামি করে একটি মামলা করে। ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের সহকারী ব্যবস্থাপক ইউনুছ আলী শনিবার বিকেলে রনিসহ অজ্ঞাতপরিচয় ২০ থেকে ২৫ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন।

এরপর রনি পাল্টা মামলা করেন, যাতে দুই সংবাদিকসহ ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের অন্যতম মালিক ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমানকেও আসামি করা হয়। ইনডিপেনডেন্টের করা মামলায় রনি রোববার বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন। হাই কোর্ট থেকে জামিন নেন সনি ও মুকুলও। মঙ্গলবার রনির দায়ের করা মামলায় তিন মাসের আগাম জামিন পেয়েছেন ইন্ডিপেন্ডেন্টের দুই সাংবাদিক। ওই দুই সাংবাদিক আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ জামিন মঞ্জুর করেন। শনিবারের ঘটনার পর বেসরকারি টেলিভিশনের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকরা এক বিবৃতিতে রনিকে বর্জনের জন্য টেলিভিশন কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানায়।

 


এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © 2021 shirshobindu.com