মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪৪

ঐশী ও সায়মা কাহিনী

ঐশী ও সায়মা কাহিনী

এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: মাদক ও বেপরোয়া জীবনে বাধা দিতে গিয়ে নিজ মেয়েরর হাতে নৃশংস ভাবে খুন হয়েছেন এক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রী । এই লোহমোর্ষক ও হৃদয়বিদারক ঘটনার বর্ণনা দেয় অতি স্বচ্ছলতা ও ছেলে বন্ধু নিয়ে উছৃংখলতায় নিমজ্জিত হওয়া আদরের সন্তান ঐশী। প্রায় একই ঘটনার পুনঃরাবৃত্তি ঘটায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সায়মা আক্তার নামের এক তরুণী ।

ওমান প্রবাসী সায়মা বলে, দেশে বেড়াতে এসে ২০১২ সালের ৪ ডিসেম্বরে মা-বাবার অগোচরে চট্টগ্রাম সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক বিতর্ক সম্পাদক হাসানুজ্জামানকে বিয়ে করে। বিয়ের ১০ দিন পর মা-বাবার সঙ্গে ওমান চলে যায়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে তার ওপর অমানুষিক নির্যাতন নেমে আসে। তার মা-বাবা জামায়াতের সক্রিয় প্রবাসী নেতা হওয়ায় শিবিরের সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন মাধ্যমে শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে গুম, অপহরণ ও মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। সবচাইতে চাঞ্চল্যকর কথা হলো- জামায়াত-শিবিরের নাশকতায় অর্থ যোগানে জড়িত থাকার অভিযোগে প্রবাসী মা-বাবার গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করে সায়মা।

এ প্রসঙ্গে বলে “জন্ম থেকে বিদেশে বেড়ে উঠলেও আমি মনে-প্রাণে একজন বাংলাদেশি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আমাকে উদ্বুদ্ধ করে এবং স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে এটাই আমার গর্ব। আমার শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা, পরিবারের সবাই স্বাধীনতার পক্ষের-এটাই আমার অহংকার।’ দেশের বড় দুটি জাতীয় পত্রিকায় সায়মার বক্তব্য গুরুত্ব দিয়ে প্রচার হয়েছে । সামান্য সামাজিক জ্ঞান থাকলে এই সংবাদ সম্মেলনের উদ্দেশ্য পরিস্কার হওয়ার কথা । ঐশী মাদক ও অবাধ মেলামেশার বাধা সমূলে সরাতে নিজ বাবা-মাকে খুন করেছে ।

অন্যদিকে পছন্দের পাত্রকে বিয়ে করে এবং আটক স্বামীর জামিন না হওয়ার কারণে বাবা-মাকে সন্ত্রাসের মদদ দাতা ও হুন্ডি ব্যবসায়ী আখ্যা দিয়েছে সায়মা। গোপনে প্রেম করে বিয়ে করার অপরাধ ঢাকতে স্বাধীনতার পক্ষের তথ্য দেয়া হয়েছে ও প্র্ধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। যদি সরকারি পুলিশ সায়মার বাবা-মাকে হেফাজতে নিতে পারে, তবে রিমান্ডে ও হাজতে তাদের পরিনতি, নিহত পুলিশ দম্পতির চাইতে কম করুণ হবে না।

একই সংগে জামায়াত সম্পৃক্ততার জন্য আরো বহু লোক গ্রেফতার ও নির্যাতনের স্বীকার হবে । ঐশী ও সায়মা তাদের নিজ নিজ অভিভাবকদের জন্মদান ও লালন পালনের উত্তম প্রতিদান দিল । সভ্যতার দাবীদার ইউরোপ-আমিরিকায় শিশু জন্ম হার ঋনাত্বক । এসব পরিবারের কর্তা কিংবা কর্তিকে যদি প্রশ্ন করা হয় পরিবারে লোক সংখ্যা কয়জন, ঝটপট উত্তর পাওয়া যায় ৩ জন । সন্তান কি ছেলে না মেয়ে -এর প্রতি উত্তরে কেউ বলেন তৃতীয় জন হল কুকুর অথবা কেউ বলেন বিড়াল । আমরা বোধ হয় সেদিকে ধাবিত হচ্ছি ।

 

 


এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © 2021 shirshobindu.com