রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫৯

বিএনএফকে নাজমুল হুদা‘র বিলুপ্ত ঘোষণা

বিএনএফকে নাজমুল হুদা‘র বিলুপ্ত ঘোষণা

এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শীর্ষবিন্দু নিউজ: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট (বিএনএফ)কে বিলুপ্ত ঘোষণা করেছেন দলটির আহ্বায়ক ও বিএনপির সাবেক শীর্ষ স্থানীয় নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। সোমবার বিকেলে পল্টনের মেহেরবা প্লাজায় নিজ কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকে বিএনএফ বিলুপ্ত করেন নাজমুল হুদা।

রাজনৈতিক জীবনে নানামুখি বিতর্কের জন্ম দেওয়া ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা এবার নতুন নাটকের জন্ম দিয়েছেন। বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) বিলুপ্ত ঘোষণা করেছেন তিনি। তার এ ঘোষণায় রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে বেশ হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। নবগঠিত বিএনএফ আগেই তাকে বহিষ্কার করায় প্রশ্ন উঠেছে তার এমন ঘোষণার এখতিয়ার নিয়েই।

বিএনপি থেকে পদত্যাগের পর ২০১২ সালে নতুন করে বিএনএফ গঠন করেন নাজমুল হুদা। শুরু থেকে এর আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন বিএনপি থেকে দু’বারের বহিষ্কৃত  এ নেতা। কিন্তু চলতি বছরের মার্চ মাসে বিএনএফের সদস্যসচিব আরিফ মাইনুদ্দিন ও প্রধান সমন্বয়কারী এসএম আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে নাজমুল হুদাকে দল থেকে বহিষ্কারের কথা জানানো হয়।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দলের অনুমতি ছাড়া নাজমুল হুদা গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ আইনের একটি ধারা নিয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেছেন। সেখানে রিটকারী হিসেবে বিএনএফের আহ্বায়ক বলে নিজেকে উল্লেখ করেছেন তিনি। এতে বিএনএফ সমস্যায় পড়েছে। দ্বিতীয়ত, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকীর দিন তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের একটি অনুষ্ঠানে দলের শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড করেছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে দলের সভায় তাকে দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার প্রাথমিক সদস্যপদও স্থগিত করার কথা জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

তাৎক্ষনিক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নাজমুল হুদা বলেন, আমিই বিএনএফকে সুপ্ত অবস্থান থেকে পুনরুজ্জীবিত করেছিলাম একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে। কিন্তু দলটির প্রধান সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বিএনএফের সেই উদ্দেশ্যকে নস্যাৎ করে দলটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার লক্ষ্যে অপচেষ্টা চালাচ্ছে। জাতীয় স্বার্থে এই অপচেষ্টা প্রতিহত করার জন্য বিএনএফের আহ্বায়ক হিসেবে এর বিলুপ্তি ঘোষণা করছি।

বিএনএফকে নিবন্ধনের আবেদন নাকচ দেয়ার নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সাবেক এ যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করছি, বিএনএফের অধীনে যে নিবন্ধনের আবেদন করা হয়েছিল তা নাকচ করে দিন। এছাড়া নিবন্ধনের যে আবেদন করা হয়েছিল সে আবেদনও প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন তিনি।

১৮ দলকে শক্তিশালী করার উদ্দেশেই বিএনএফ গঠন হয়েছিল উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্ট বার সমিতির সাবেক এ সভাপতি বলেন, বিএনএফ গঠন করার উদ্দেশ ছিল বিএনপিকে ধ্বংস নয় বরং ১৮ দলীয় জোটের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ১৯ দলীয় ঐক্যজোটের মাধ্যমে জাতীয়তাবাদী শক্তির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, দলটির সমন্বয়ক বিএনপিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। তাই এই অবস্থা চলতে দেয়া যায় না। আজকের এই বিলপ্তির ঘোষণার মাধ্যমে দলটির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাওয়ার কোন অধিকার নেই। কারণ আমিই এই দলটির ঘোষণা দিয়েছিলাম আর আমিই এর বিলুপ্তির ঘোষণা দিচ্ছি।

 


এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © 2021 shirshobindu.com