শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১০:৫৭

লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

হজের সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান আরাফাত দিবস। ৯ই জিলহজ শনিবার (১৫ জুন) হাজীরা পবিত্র মক্কা নগরীর অদূরে আরাফাত ময়দানে উপস্থিত হয়েছেন।

সারা দুনিয়া থেকে  আসা হাজীদের সমবেত স্বরে ‘লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক, লাব্বায়েকা লা শরিকা লাকা লাব্বায়েক’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে বিশাল আরাফাত ময়দান।

এই ময়দানে রয়েছে জাবালে রহমত পর্বত। এই পর্বতের শীর্ষে দাঁড়িয়ে ১৪৩৫ বছর আগে রাসুল সা: মানবতার মুক্তির জন্য তার অবিস্মরণীয় বিদায়ী হজের ভাষণ দিয়েছিলেন।

দোয়া কবুলের আরাফাত ময়দানের এ পর্বত ও এর আশপাশে হাজীরা বেশি উপস্থিত হন। অবস্থান করার ক্ষেত্রে হাজীরা এলাকাটিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

৮ জিলহজ হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। মক্কা শরীফে উমরাহ পালনের পর এদিন হাজীগণ মক্কার শহরতলি মিনাতে সমবেত হন। তারপর তারা শনিবার আরাফাতের ময়দানে যান।

সারাদিন ইবাদতবন্দেগি ও দোয়াদুরূদে মাধ্যমে দিনটি অতিবাহিত করেন। এই ময়দানে জোহর ও আসরের নামাজ একত্রে আদায় করেন হাজিরা। সে সময় হজের খুতবা পাঠ করা হয়।

সূর্য অস্তের পর হাজীগণ আরাফাত থেকে মক্কার দিকে মুজদালিফার জন্য রওয়ানা হবেন। সেখানে এসে তারা একত্রে মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করবেন এবং রাত কাটাবেন। পরদিন সকালের আলো ফোটার পর হাজিগণ মিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবেন।

সেখানে জুমরায় কংকর নিক্ষেপ করবেন। মিনাতে তার কোরবানি করবেন। এরপর মাথামুন্ডন, চুলের অগ্রভাগ কর্তনের মধ্য দিয়ে হজের গুরুত্বপূর্ণ আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে। এরপরও হাজীগণ মিনাতে তাদের তাবুতে অবস্থান করে জুমরায় আরও দুইদিন কংকর নিক্ষেপ করবেন।

এরপর মক্কাতে ফিরে ফরজ তাওয়াফ ও সাফা-মারওয়াতে সায়ি করার মাধ্যমে হজের আনুষ্ঠানিতা সম্পন্ন হবে। এ বছর সারা বিশ্ব থেকে ২০ লাখেরও বেশি হাজী পবিত্র হজ পালন করছেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2012-2024