শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪৭

কোভিড সংকট মোকাবেলায় ব্যর্থ বরিস জনসন: ডমিনিক কামিংস

কোভিড সংকট মোকাবেলায় ব্যর্থ বরিস জনসন: ডমিনিক কামিংস

/ ৬৬
প্রকাশ কাল: বৃহস্পতিবার, ২৭ মে, ২০২১

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন: ব্রিটেনে কোভিড সংকট সামলাতে ব্যর্থ হয়েছে দেশটির সরকার। খোদ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তীর্যক মন্তব্য করে ব্যাপক আলোচনায় এসেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সদ্য সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ডমিনিক কামিংস। এ খবর দিয়েছে সংবাদ সংস্থ রয়টার্স।

তিনি বলেন, কয়েক দশকের মধ্যে সব থেকে বড় মহামারিতে জনগণকে যেভাবে সুরক্ষা দেয়ার কথা ছিল তাতে বিপর্যয়করভাবে কমতি দেখা গেছে। ডমিনিক কামিংস বলেছেন, ‘করোনাভাইরাস মারাত্মক কিছু নয়, সেটি প্রমাণ করতে টেলিভিশন লাইভে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে শরীরে করোনাভাইরাস ঢুকানোর কথা ভেবেছিলেন বরিস জনসন।’স্থানীয় সময় বুধবার (২৬ মে) দেশটির আইনপ্রণেতাদের সামনে টেলিভিশন অনুষ্ঠানে কামিংস এই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, সত্যি কথা হচ্ছে চরম সংকটময় পরিস্থিতিতে জনগণ সরকারের কাছ থেকে যেসব উদ্যোগ আশা করার ‍অধিকার রাখে তা পালনে জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী, জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা, আমার মতো জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টারা চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছেন।শুধু বরিসই নয়, যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানককের সমালোচনাও করেছেন কামিংস।

তিনি বলেন, জনগণ এবং সরকারের কাছে মিথ্যা বলার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানককে বরখাস্ত করা উচিত ছিল।২০২০ সালের শুরুতেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন বরিস জনসন। পরে বরিস সুস্থ হয়ে জানান, তার অবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে গিয়েছিল যে, তার মৃত্যুর ঘোষণা দেওয়ার প্রস্তুতিও নিয়ে ফেলা হয়েছিল।

তিনি বৃটিশ আইনপ্রনেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকার ও ডাউনিং স্ট্রিট সংকট চিহ্নিত করতে দেরি করেছিলেন। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেও জনসনের কার্যালয় করোনা মোকাবেলায় কোনো ব্যবস্থা নেয় নি। প্রধানমন্ত্রীসহ অনেক সিনিয়র মন্ত্রী তখন ছুটি কাটিয়ে বেড়াচ্ছেন। সত্য হচ্ছে, আমার মতো সিনিয়র মন্ত্রী, কর্মকর্তা বা উপদেষ্টারা বিপর্যয়করভাবে মানুষকে সুরক্ষিত করতে ব্যর্থ হয়েছি। সরকারকে যখন জনগণের সবথেকে বেশি দরকার ছিল তখনই সরকার ব্যর্থ হলো। কোভিডে যেসব পরিবারের সদস্যদের মৃত্যু হয়েছে আমি তাদের কাছে এ জন্য গভীর দুঃখ প্রকাশ করছি।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, কোভিড মহামারিতে বৃটেনে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বিশ্বে কোভিড মৃত্যুতে বৃটেন পঞ্চম অবস্থানে। করোনাভাইরাসে বিশ্বে ক্ষতিগ্রস্থ দেশের তালিকায় যুক্তরাজ্য সাত নম্বরে রয়েছে। সরকারি হিসেবে ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত দেশটির প্রায় এক লাখ ২৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

অভিযোগ আছে, বরিস জনসন ২০২০ সালে যখন প্রথম কোভিড ছড়িয়ে পরছিল তখন এটি মোকাবেলায় পদক্ষেপ গ্রহণে দেরি করেছেন। ২০১৬ সালের ব্রেক্সিট প্রচারণায় জনসনের প্রধান কৌশল নির্ধারক ছিলেন ডমিনিক কামিংস। ২০১৯ সালের নির্বাচনে জনসনের বড় জয়ের পেছনেও তার কৌশল ছিল।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © shirshobindu.com 2021